Gadgets

এলপিজি গ্যাসের দাম ২০২৩ – এলপিজি গ্যাসের বর্তমান দাম প্রতি সিলিন্ডার

জ্বালানি ক্ষেত্রে ব্যবহার করা হয় এলপিজি গ্যাস। যা বর্তমানে প্রতিটি মানুষেরই জ্বালানির জন্য মূল উপাদান। জ্বালানের মূল উপাদান হিসেবে ব্যবহার হয়ায় গ্যাসের চাহিদা দিনের পর দিন বেড়ে যাচ্ছে। যার কারণে গ্যাসের সংকট হওয়ায় বেড়ে যায় গ্যাসের দাম। তবে বিভিন্ন সময় আবার গ্যাসের দাম প্রায় কমে যায়। এর কারণে ওটা নামা হয়ে থাকে জ্বালানি গ্যাসের দাম বা এলপিজি গ্যাসের দাম। তবে বর্তমানে এলপিজি গ্যাসের দাম সম্পর্কে অনেকেই জানে না তাই হয়তো অনেকেই এই এলপিজি গ্যাসের দাম সম্পর্কে জানার জন্য বিভিন্ন রকম প্রতিবেদন খুঁজছেন।

তাই আপনারা যারা এলপিজি গ্যাসের দাম সম্পর্কে আপডেট তথ্য জানার জন্য ভাবছেন। তারা একদম সঠিক জায়গায় এসেছেন। কেননা আমরা এই আর্টিকেলে প্রকাশ করেছি এলপিজি গ্যাসের দাম সম্পর্কে। যা থেকে আপনারা বুঝতে পারবেন বর্তমানে বাজারে এলপিজি গ্যাসের দাম কত টাকা। তাই আপনি যদি সঠিক তথ্য জানতে চান। সে ক্ষেত্রে আমাদের এই সম্পূর্ণ আর্টিকেলটি মনোযোগ সহকারে পড়ুন। এবং জেনে নিন এলপিজি গ্যাসের দাম।

গ্যাসের ব্যবহার:

বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই গ্যাস ব্যবহার হয়ে থাকে রান্নার কাজে। প্রতিটি বাড়িতেই গ্যাস এবং গ্যাসের সিলিন্ডার পাওয়া যাবে। যা মানুষ ব্যবহার করে থাকে। গ্যাসের প্রচলন শুরু হওয়ায় মানুষদের আর অন্য উপায়ে জ্বালানি সংগ্রহ করতে হয় না। এখন মানুষ বাজার থেকে একটি গ্যাসের সিলিন্ডার ক্রয় করে নিয়ে এলে। পুরো এক মাসের মতন রান্নার কাজ করতে পারে। যা অনেকটাই সুবিধা জনক একটা ব্যাপার।

তবে যে সময়ে গ্যাসের প্রচলন ছিল না সেই সময় মানুষ জ্বালানি কাঠ সংগ্রহ করে রান্নার কাজ চালাত। যা মানুষের কাছে অনেক কষ্টের ছিল। তবে সময়ের ব্যবধানে এখন গ্যাসের প্রচলন শুরু হয়েছে যা মানুষের জন্য অনেকটাই সুবিধা জনক একটা ব্যাপার।

 

গ্যাসের উৎপাদন:

গ্যাস আমাদের প্রাকৃতিক সম্পদ। গ্যাস উৎপাদন করা হয় মাটি থেকে। যা সবখানে পাওয়া যায় না। নির্দিষ্ট কোন ভূমিতে থাকে গ্যাসের আবরণ। যেখান থেকে অনেক কষ্টে ডিজিটাল পদ্ধতিতে গ্যাস উৎপাদন করা হয় এবং নানান পদক্ষেপ অবলম্বন করে সিলিন্ডারে গ্যাস ঢুকিয়ে বাজারজাত করা হয়। যেগুলো বর্তমানে বিভিন্ন কোম্পানি করে থাকে। এবং বিভিন্ন রকম কোম্পানির নামে এই সমস্ত বা গ্যাস গুলো বাজারজাত করা হয।

এলপিজি গ্যাসের বর্তমান মূল্য:

গ্যাস সাধারণত একটি সিলিন্ডারে ১২ কেজি করে রাখা হয় একটি সিলিন্ডারে ১২ কেজি গ্যাসের দাম বর্তমান বাজার মূল্য ১২৩৫ টাকা। যা বর্তমানে অনেকটাই বেশি। সাধারণত কম দামে গ্যাস ক্রয় করা বলতে ৯০০ থেকে ৯৫০ টাকা পর্যন্ত এর দাম হয়ে থাকে। বিভিন্ন সময় বিভিন্ন রকম দাম হয়ে থাকে এলপিজি গ্যাসের। তাই আপনারা যারা বর্তমানে এলপিজি গ্যাস কেনার কথা ভাবছেন। তারা বাজার ষের প্রতিটি দোকান থেকে ই গ্যাসের দাম সম্পর্কে জানার চেষ্টা করবেন।

কেননা অনেক অসাধু ব্যক্তি আছে যারা প্রতিনিয়তই বেশি দামে এলপিজি গ্যাস বিক্রি করে থাকি। তাই যদি কোন বিক্রেতা বেশি দাম চেয়ে থাকে। সে ক্ষেত্রে আপনি নিজে থেকে জানতে পারবেন। কেন বা কোন দোকানদার আপনার থেকে বেশি টাকা চাচ্ছে এবং আপনি যে সমস্ত ব্যক্তির রকম টাকা দাবি করেছে। তাদের কাছ থেকে কম টাকা দিয়ে গ্যাস ক্রয় করে নিতে পারবেন। তাই অবশ্যই প্রতিটি মানুষের গ্যাস কিনতে যাবার সময় সকল দোকানগুলো ভালোভাবে যাচাই বাছাই করে গাছ কিনা প্রয়োজন।

করণীয় :

তবে প্রাকৃতিক সম্পদ হিসেবে প্রতিটি মানুষেরই গ্যাসের ব্যবহার নিয়ন্ত্রণে নিয়ে আসা প্রয়োজন। কেননা প্রায় সময় যে সমস্ত গ্যাস কল গুলো ব্যবহার করে গ্যাস উঠানো হয়। সেগুলোর দ্বারা গ্যাস উঠানো সম্ভব হয় না। বা গ্যাসের পরিমাণটা দিনের পর দিন কমে যাচ্ছে। যার কারণে প্রতিটি মানুষেরই গ্যাসের ব্যবহার নিয়ন্ত্রণে আনা দরকার।

এতে করে পরবর্তী সময়ে কোনরকম সমস্যা হবে না বলে মনে করছি যদি নিয়ন্ত্রণভাবে ক্যাশ ব্যবহার করা হয়। শুধুমাত্র রান্নার কাজে নয় অনেক কলকারখানা বিভিন্ন ফ্যাক্টরি রয়েছে। যেগুলোতে গ্যাসের ব্যবহার হয়ে থাকে সেই সমস্ত কোম্পানিগুলো বা ফ্যাক্টরি গুলোর  মালিক দেরকেও সতর্ক থাকতে হবে। যাতে করে অতিরিক্ত গ্যাস অপচয় না হয়। তবেই প্রতিটি প্রাকৃতিক সম্পদ রক্ষা করা যাবে বলে মনে করা যায়।

 

Related Articles

Back to top button
Close